শিরোনাম :

  • বিদ্যুৎ স্বাভাবিক হতে সময় লাগবে ‘৮ থেকে ১০ ঘণ্টা’ ঢাকায় বিদ্যুৎ স্বাভাবিক ‘রাত ৮টার মধ্যে, চট্টগ্রামে ৯টায়’দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২ আইসিসির সেরা হওয়ার দৌড়ে বাংলাদেশের নাসুমআফগান ক্রিকেট বোর্ডের সিইওকে বিদায় দিল তালেবান
বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশিপের মশাল প্রজ্বলন অনুষ্ঠিত
অপূর্ব চক্রবর্তী
২২ আগস্ট, ২০২২ ১৭:৫৪:৫৫
প্রিন্টঅ-অ+

সোমবার (২২ আগস্ট ২০২২) বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশিপের পক্ষ থেকে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর সমাধি টুঙ্গিপাড়ায় শ্রদ্ধা নিবেদন এবং প্রতিযোগিতার মশাল প্রজ্বলন অনুষ্ঠিত হয়।


মুজিব বর্ষ ও বাংলাদেশের সুবর্ণজয়ন্তীকে উৎসর্গ করে ‘বঙ্গবন্ধুর সোনার দেশ, তারুণ্যের বাংলাদেশ’ কে প্রতিপাদ্য হিসেবে ধারণ করে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে সারাদেশের পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মিলিত অংশগ্রহণে আয়োজিত হতে যাচ্ছে বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশিপ এর তৃতীয় আসর।


এই আয়োজনের অংশ হিসেবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন এবং প্রতিযোগিতার মশাল প্রজ্বলন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।


এই অনুষ্ঠান উপলক্ষে সোমবার শোকাবহ  আগস্ট স্মরণে বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশিপ এর পক্ষ থেকে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের আয়োজনে পোলার আইসক্রীমের প্রধান পৃষ্ঠপোষকতায় এবং স্পেলবাউন্ড কমিউনিকেশনস লিমিটেড এর পরিচালনায়  বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানিত উপাচার্যবৃন্দ, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন, গোপালগঞ্জ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, গোপালগঞ্জ জেলা জেলা প্রশাসক, জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ এবং বিকেএসপি এর প্রতিনিধিগণ, সংশ্লিষ্ট ফেডারেশন ও পরিচালনাকারীদের উপস্থিতিতে টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধি সৌধ কমপ্লেক্সে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।


অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশিপ এর সাংগঠনিক কমিটির চেয়ারম্যান, যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মোঃ জাহিদ আহসান রাসেল, এমপি।


শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে একটি আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় বিগত বছরের আসরগুলোর সাফল্যের ধারাবাহিকতার প্রত্যাশা রেখে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জনাব মোঃ জাহিদ আহসান রাসেল, এমপি বলেন, ''২০১৯ সালে প্রথম ৬৫ টি বিশ্ববিদ্যালয় এবং ২৬০০ ক্রীড়াবিদের নিয়ে শুরু হয়েছিল বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশিপের প্রথম আসর। যেখানে নারী ক্রীড়াবিদদের সংখ্যা ছিল ৩০০ জন।


বর্তমানে বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশিপের তৃতীয় আসরে এসে বিশ্ববিদ্যালয় সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়ে ১২৫ টি। যেখানে নারী ক্রীড়াবিদের সংখ্যা ১৫৫০ জন। 


এছাড়াও তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের পরিকল্পনাধীন ক্রীড়াবিদদের জন্যে বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন। 


তিনি বলেন, বর্তমানে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা অনুর্ধ্ব-১৭ ফুটবল টুর্নামেন্ট মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশাপাশি স্কুলের ছেলে-মেয়েরা এখন খেলাধুলার অংশগ্রহণ করতে পারছে। 


এবছরের সেপ্টেম্বর-অক্টোবর থেকে শুরু হবে আন্তঃকলেজ ফুটবল টুর্নামেন্ট যেখানে উচ্চ মাধ্যমিকের শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করতে পারবে। শুরুতে ছেলেদের নিয়ে এই টুর্নামেন্ট আরম্ভ হলেও পর্যায়ক্রমে মেয়েদের নিয়েও আয়োজিত হবে।


সর্বশেষ তিনি, খেলাধুলায় আহত ক্রীড়াবিদদের জন্যে ''বঙ্গবন্ধু ক্রীড়া সেবী ফাউন্ডেশনের'' কার্যক্রমের কথা তুলে ধরেন। 


তিনি আরও বলেন, বর্তমানে দেশে বিভিন্ন ভাতা যেমনঃ বিধবা ভাতা, নারী ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা প্রচলিত থাকলেও ছিল না ক্রীড়া ভাতা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকার প্রথমবার ২০১৯ সালে ক্রীড়াবিদদের জন্যে চালু করেন ''ক্রীড়া ভাতা''। এবছর ১৩২০ জনকে দেওয়া হয় ক্রীড়া ভাতা।


যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সচিব মেজবাহ উদ্দিন বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশের অনুষ্ঠিত বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশিপের তৃতীয় আসরে দেখা যাচ্ছে খেলোয়াড় এবং বিশ্ববিদ্যালয় উভয়ের সংখ্যা পূর্ববর্তী আসরগুলোর তুলনায় বৃদ্ধি পাচ্ছে। এতেই স্পষ্টত হচ্ছে বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশিপের জনপ্রিয়তা। 


বঙ্গবন্ধুর একটি কথা স্মরণ করে তিনি বলেন, ''সোনার দেশ গড়তে হলে সোনার ছেলে চাই৷ কাজেই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের এই সোনার বাংলা গড়ে তোলার জন্যে তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে আসতে হবে।''


তিনি আরও বলেন, এই সোনার বাংলা গড়ে তোলার ক্ষেত্রে প্রধান বাঁধা হচ্ছে মাদক। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের কাছে তিনি অনুরোধ করেন, তরুণ প্রজন্মকে বিভিন্ন খেলাধূলা এবং শিক্ষনীয় ক্লাবের মাধ্যমে মাদকাসক্ত থেকে দূরে রাখতে। তবেই গড়ে উঠবে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা। এ প্রসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনের পাশে তিনি এবং যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সর্বদা তাদের পাশে আছেন বলেও জানান।


এছাড়াও আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন, গোপালগঞ্জ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জনাব মাহবুব আলী খান, গোপালগঞ্জ জেলার জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা এবং বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানিত উপাচার্য সহ প্রমুখ ব্যক্তিবর্গ।


আলোচনা সভা শেষে এই প্রতিযোগিতার ফিক্সচার ড্র ও মশাল প্রজ্বলন অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ও সম্মানিত অতিথিবৃন্দ সম্মিলিতভাবে এই মশাল প্রজ্বলনে অংশগ্রহণ করেন।


উল্লেখ্য, আগামী সেপ্টেম্বরে ১২৫ টি বিশ্ববিদ্যালয়ের অংশগ্রহণে ফুটবল, ক্রিকেট, সুইমিং, অ্যাথলেটিক্স, টেবিল টেনিস, বাস্কেটবল, ভলিবল, হ্যান্ডবল, সাইক্লিং, দাবা, কাবাডি ও ব্যাডমিন্টনসহ ১২টি ইভেন্টের সমন্বয়ে  নারী, পুরুষ উভয় বিভাগে ৭ হাজারেরও অধিক শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণে শুরু হতে যাচ্ছে বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশিপ এর ৩য় আসর।

আরো পড়ুন