শিরোনাম :

  • সন্ধ্যার মধ্যেই আঘাত হানবে ‘গুলাব’, সতর্কতা জারিকরোনা পরীক্ষায় শাহজালালে বসল পিসিআর ল্যাবট্রেনের ছাদে হত্যার ঘটনায় গ্রেপ্তার ৫চার অপহরণকারীকে হত্যা করে প্রকাশ্যে ঝুলিয়ে রাখল তালেবান
লাখো কোটি বাঙ্গালীর
প্রশংসায় ভাসছেন মাস্টারশেফ অস্ট্রেলিয়ায় তৃতীয় কিশোয়া
১৪ জুলাই, ২০২১ ১২:৪৫:৪২
প্রিন্টঅ-অ+


অস্ট্রেলিয়ায় রান্নাবিষয়ক রিয়েলিটি শো ‘মাস্টারশেফ অস্ট্রেলিয়া-২০২১’ এর দ্বিতীয় রানারআপ নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত কিশোয়ার চৌধুরী। চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন ২৭ বছর বয়সী ভারতীয় বংশোদ্ভূত অস্ট্রেলীয় জাস্টিন নারায়ণ; প্রথম রানারআপ হয়েছেন আরেক প্রতিযোগী পিট ক্যাম্পবেল।

চ্যাম্পিয়ন জাস্টিন নারায়ণ বাড়ি ফিরছেন প্রায় এক কোটি ৬০ লাখ টাকা পুরস্কার নিয়ে। আর দ্বিতীয় স্থান অর্জনকারী পিট ক্যামবেল জিতেছেন প্রায় ২০ লাখ টাকা।  তৃতীয় হয়ে কিশোয়ার পেয়েছেন প্রায় ১৩ লাখ টাকা।

দুদিনের গ্র্যান্ড ফিনালের প্রথম দিনে ৫১ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে ছিলেন কিশোয়ার। অন্যদিকে ৫৩ পয়েন্টে শীর্ষে ছিলেন পিট আর ৫০ পয়েন্টে তৃতীয় ছিলেন জাস্টিন। দ্বিতীয় দিন শেষে ১১৪ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে থেকে সন্তুষ্ট থাকতে হয় কিশোয়ারকে। অন্যদিকে পিটও শীর্ষস্থান ধরে রাখতে পারেননি। তিনি ১২৪ পয়েন্ট পেয়ে দ্বিতীয় হয়েছেন। তার চয়ে মাত্র এক পয়েন্ট বেশি পেয়ে চ্যাম্পিয়ন হন জাস্টিন। আজ মাস্টারশেফ অস্ট্রেলিয়ার গ্র্যান্ড ফিনালেতে ‘চাপের মুখে রান্না’ চ্যালেঞ্জ রাখা হয়।

আর এ চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেন বিশেষ অতিথি ও সিডনির অন্যতম সেরা রাঁধুনি পিটার গিলমোর। মাস্টারশেফের বহু জটিল রান্নার চ্যালেঞ্জ তারই করা। আজ তিনি সরাসরি উপস্থিত ছিলেন। আর তিন প্রতিযোগীর জন্য তিনি রাখেন একই রান্নার পরীক্ষা।

তাদের রাঁধতে দেওয়া হয় দুটি ভাগে। প্রথম ভাগে রাঁধতে হয়েছে স্কুইড। এই স্কুইডকে ছিলে এর ওপর মাশরুমের কাস্টার্ড, মাখন আর চিনাবাদাম দিতে হয়। দ্বিতীয় ভাগে ছিল ডেজার্ট। নাম গোল্ডেন ক্র্যাকার বা স্বর্ণের বল। এর ভেতর থাকবে বিভিন্ন মিষ্টির দানা। এই খাবারটি সিডনির বিখ্যাত অপেরা হাউস রেস্টুরেন্টের জন্য বানানো হয়েছে। প্রায় তিন মাস সময় লেগেছে এ ডেজার্টটির রেসিপি তৈরিতে।

দর্শক সারিতে থাকা প্রতিযোগীদের পরিবার আর অন্যান্যদের উল্লাসে লড়াই চালিয়ে যান তারা। এ রান্না নিয়ে কিশোয়ার বলেন, ‘এটা এভারেস্টে ওঠার মতো কঠিন ছিল।’

উল্লেখ্য, গত ১৯ এপ্রিল শুরু হয় রান্নাবিষয়ক জনপ্রিয় রিয়্যালিটি শো ‘মাস্টারশেফ অস্ট্রেলিয়া’। সেরা ২৪ জনকে নিয়ে শুরু হওয়া এ প্রতিযোগিতায় অন্যতম প্রতিযোগী ছিলেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত কিশোয়ার চৌধুরী।

মাস্টারশেফ অস্ট্রেলিয়ার চ্যম্পিয়ন না হলেও চূড়ান্ত ফলাফল ঘোষণার আগেই লাখ লাখ বাঙালির মন জয় করে নিয়েছেন তিনি।

অনেকের মতে, আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বাংলাদেশে প্রচলিত নানা ধরনের খাবারকে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করার কারণেই ৩৮ বছর বয়সী এই রাঁধুনীকে অন্যসব প্রতিযোগী থেকে আলাদা করেছে। তবে শেষ পর্যন্ত চ্যাম্পিয়ন হওয়া হলো না তার।

কিশোয়ার চৌধুরীর জন্ম ও বেড়ে ওঠা অস্ট্রেলিয়ায় হলেও তার পারিবারিক আবহটা সবসময়ই ছিল বাঙালিয়ানা। তার বাবার বাড়ি ঢাকার বিক্রমপুরে আর মা কলকাতার বর্ধমানের। তারা দুজনে আজ থেকে প্রায় ৫০ বছর আগে অস্ট্রেলিয়ায় পাড়ি জমান।

বিদেশে বসবাস করলেও দেশের ভাষা ও সংস্কৃতি চর্চা সবকিছু বজায় রেখেছেন কিশোয়ারের বাবা-মা, আর সেটা তারা নিজের সন্তানদের

সেগুলো ধারণ করতে উৎসাহিত করেছেন। বাবা-মায়ের উৎসাহ থেকেই বাঙালিয়ানা খাবারের হাত পাকা হয় কিশোয়ারের।

আমার বার্তা/ এইচ এইচ এন


আরো পড়ুন