শিরোনাম :

  • ঝিলপাড়ে শুধুই আহাজারি ১ হাজার ৯৪২ জন হাজি দেশে ফিরেছেন ভিএআর কেড়ে নিলো ম্যানসিটির জয় বিমানের ফিরতি হজ ফ্লাইট শেষ হবে ১৫ সেপ্টেম্বর টানা ১১ জয়ে রেকর্ডে ভাগ বসাল লিভারপুল
নীতিবান লেখক তৈরী করছে শীলন : ড. হাসান কবির
নিজস্ব প্রতিবেদক :
০৩ আগস্ট, ২০১৯ ১৮:৪৬:২৭
প্রিন্টঅ-অ+


নীতি পরায়ণ ও আদর্শ লেখক তৈরী করছে শীলন বাংলাদেশ উল্লেখ করে বাংলা একাডেমীর পরিচালরক ড. হাসান কবির বলেন, গত একযুগ আগেও একটি শীলন বাংলাদেশের সাহিত্যানুষ্ঠানে এসেছিলাম। নীতিবান আদর্শ মানুষ তৈরী করছে শীলন বাংলাদেশ।

তিনি বলেন, বাংলাভাষার সাহিত্য ভাণ্ডার বিশ্বের নিকট তুলে ধরতে হবে। বর্তমানে অনেক উচ্চমানের সাহিত্য রচিত হচ্ছে। অনেক সাহিত্যিক তৈরী হচ্ছে। আলেমদের সব মহলে নিজেদের দক্ষতা তুলে ধরতে হবে।

তিনি শীলনবাংলাদেশের কৃতজ্ঞতা স্বীকার করে বলেন, কওমী অঙ্গনে এ ধরনের সংগঠন প্রশংসার দাবী রাখে। আমি মনে করি সৃজনশীল লেখক তৈরীর ক্ষেত্রে এ ধরনের সংগঠনগুলোর প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য।

শুক্রবার (২ই আগস্ট ) সকালে রাজধানীর রামপুরায় মাদরাসা উসমান রাঃ মিলনায়তনে শীলন বাংলাদেশের ১১০তম সাহিত্যসভা ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণীতে এসব কথা বলেন।

বর্তমান সময়কে প্রতিযোগিতার সময় উল্লেখ করে কথাসাহিত্যক ও মুহাদ্দিস মাওলানা মুহাম্মদ যাইনুল আবিদীন বলেন, বর্তমান সময় হচ্ছে প্রতিযোগিতার সময়। শিক্ষিত মানুষ সমাজে অনেক তৈরী হচ্ছে, ফলে, কর্মক্ষেত্র কমে যাচ্ছে। যারা প্রতিযোগিতার মাধ্যমে এগিয়ে থেকে নিজেকে ভালোভাবে গড়ে তুলতে পারবে তারাই অদূর ভবিষ্যতে জাতীয় পর্যায়ে কাজ করার যোগ্য বিবেচিত হবে।

তিনি শীলন বাংলাদেশের গৌরবোজ্জ্বল অতীত তুলে ধরে বলেন, ইসলামী ঘরানার লেখক তৈরীর ক্ষেত্রে শীলনের অবদান অনস্বীকার্য। এসময়ের তরুণদের প্রতিযোগিতার মাধ্যমে নিজেকে টিকিয়ে রাখতে হলে শীলনের মত সংগঠনের সাথে যুক্ত থাকা বাঞ্ছনীয়।

‘নিজেকে গড়ি’ স্লোগান নিয়ে সৃজনশীল লেখালেখির সংগঠন শীলন বাংলাদেশের ১১০তম সাহিত্যসভা ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা  শুরু হয় শুক্রবার (২ই আগস্ট )  সকাল ৮টায়।

মাওলানা মাসউদুল কাদিরের সভাপতিত্বে ও কবি আদিল মাহমুদের উপস্থাপনায় আরও বক্তব্য রাখেন, রাজধানীর দিলুরোড মাদারাসার মুহাদ্দিস মাওলানা আবুবকর সাদি, দারুল উলুম রামপুরার মুহাদ্দিস মাওলানা জামিল আহমদ, কবি শামস আরেফিন, গীতিকার ও ছড়াকার সায়ীদ উসমান প্রমুখ।  

শীলনবাংলাদেশ আয়োজিত সাহিত্য সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ ইসলামী লেখক ফোরামের সভাপতি ও ঢাকা টাইমসের নিউজ এডিটর জহির উদ্দীন বাবর বলেন, আজকের তরুণরাই হবে আগামীর কর্ণধার। জাতিকে নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য তরুণদের সর্বদিক থেকে পারদর্শী হতে হবে। শীলনবাংলাদেশ সে লক্ষ্যেই কাজ করে যাচ্ছে।

শীলন বাংলাদেশের সভাপতি মাসউদুল কাদির বলেন, শীলনবাংলাদেশ কওমী অঙ্গনের মেধাবী শিক্ষার্থীদের সমাজে  যোগ্য ব্যক্তি হিসেবে গড়ে তোলার জন্যই কাজ করে যাচ্ছে। বর্তমানে শীলনের অনেক সদস্য সমাজে নিজেকে সুপ্রতিষ্ঠিত করে তুলেছে।

মাসউদুল কাদির বলেন, নতুন উদ্যমে শুরু হওয়া এই শীলন বাংলাদেশের সাহিত্য সভা ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার  মূল টার্গেট আমাদের মেধাবী তৃণমূল। আমরা তাদের নিয়ে পথ চলতে চাই।

সভাশেষে সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের হাতে ক্রেস্ট ও আকর্ষণীয় পুরস্কার তুলে দেন আমন্ত্রিত অতিথিরা।



আমার বার্তা/০৩ আগস্ট ২০১৯/জহির


আরো পড়ুন