শিরোনাম :

  • বিদ্যুৎ স্বাভাবিক হতে সময় লাগবে ‘৮ থেকে ১০ ঘণ্টা’ ঢাকায় বিদ্যুৎ স্বাভাবিক ‘রাত ৮টার মধ্যে, চট্টগ্রামে ৯টায়’দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২ আইসিসির সেরা হওয়ার দৌড়ে বাংলাদেশের নাসুমআফগান ক্রিকেট বোর্ডের সিইওকে বিদায় দিল তালেবান
টিএসসিতে নামাজ পড়তে না দিলে বসে থাকব না : চরমোনাই পির
২৩ এপ্রিল, ২০২২ ১২:১৫:১৫
প্রিন্টঅ-অ+

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রে (টিএসসি) ছেলে-মেয়েদের নামাজ পড়তে বাধা দেওয়া হলে কঠোর আন্দোলন করা হবে বলে জানিয়েছেন ইসলামী আন্দোলনের আমির ও চরমোনাই পির মুফতি সৈয়দ মুহাম্মাদ রেজাউল করিম।


তিনি বলেন, টিএসসিতে ইমানবিধ্বংসী কাজ হয়। সেখানে ছেলেদের ও মেয়েদের নামাজে বাধা দেওয়া হয়েছে। আমাদের নামাজ পড়তে দেওয়া হবে না, আর আমরা বসে থাকব— তা হবে না। এক বিন্দু রক্ত থাকতেও তা বাস্তবায়ন করতে দেবো না।


গতকাল শুক্রবার জুমার নামজ শেষে রাজধানীর বায়তুল মোকাররম মসজিদ প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত এক সমাবেশে এ কথা বলেন চরমোনাই পির। সুইডেনে কোরআন অবমাননা এবং পূর্ব জেরুজালেমে আল-আকসা মসজিদে ইসরায়েলি বাহিনীর হামলার প্রতিবাদে এই সমাবেশ আয়োজন করে ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশের ঢাকা মহানগর শাখা।


সমাবেশে ইসলামি আন্দোলনের নেতারা বলেন, সুইডেনে কোরআন পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। আল আকসা মসজিদে হামলা চালানো হয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশ সরকার এই ঘটনায় প্রতিবাদ জানায়নি। এই সরকার মুসলমানদের সরকার নয়। খাঁটি মুসলমানদের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আনতে হবে।


বক্তারা সরকারের উদ্দেশে বলেন, মুসলমানদের পক্ষে অবস্থান নিন। সুইডেনের রাষ্ট্রদূতকে তলব করুন। তা না হলে সুইডেন দূতাবাস ঘেরাও করা হবে।


সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইসলামি আন্দোলনের আমির মুফতি সৈয়দ রেজাউল করিম বলেন, মুসলমানরা এমন একটি জাতি যে জাতি কোনোদিন কারও ওপর অন্যায় করেছে— এমন কোনো ইতিহাস কোথাও নেই। কিন্তু বিশ্বজুড়ে মুসলমানদের বারবার আঘাত করা হচ্ছে।


তিনি বলেন, সুইডেনে কোরআন পুরিয়ে যে আঘাত দেওয়া হয়েছে, ক্ষত দেওয়া হয়েছে, এই আগুনে তারা পুড়ে ছাড়খার হয়ে যাবে। সরকারকে বলব, নিন্দা জ্ঞাপন করুন। অবিলম্বে প্রতিবাদ করুন।


মুফতি রেজাউল করিম আরও বলেন, আল আকসা মসজিদে আমাদের মুসলিম ভাইদের ওপর হামলা চালানো হচ্ছে। আমরা এটা কোনোভাবেই মেনে নেব না। বিশ্ববাসীর প্রতি আহŸান জানাব, আপনারা ইসরায়েলকে বয়কট করুন।


সমাবেশে ইসলামি আন্দোলনের ঢাকা মহানগর ও কেন্দ্রীয় কমিটির নেতাসহ বিভিন্ন ইউনিটের কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। সমাবেশ শেষে বিক্ষোভ মিছিল করেন ইসলামী আন্দোলনের নেতাকর্মীরা।

আরো পড়ুন