শিরোনাম :

  • বিদ্যুৎ স্বাভাবিক হতে সময় লাগবে ‘৮ থেকে ১০ ঘণ্টা’ ঢাকায় বিদ্যুৎ স্বাভাবিক ‘রাত ৮টার মধ্যে, চট্টগ্রামে ৯টায়’দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২ আইসিসির সেরা হওয়ার দৌড়ে বাংলাদেশের নাসুমআফগান ক্রিকেট বোর্ডের সিইওকে বিদায় দিল তালেবান
লাগামহীন লোভই রানা প্লাজা দুর্ঘটনার কারণ : ন্যাপ
২৫ এপ্রিল, ২০২২ ১২:০১:৩২
প্রিন্টঅ-অ+

লাগামহীন লোভই রানা প্লাজা ট্র্যাজেডির পেছনে কাজ করেছে বলে মন্তব্য করে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ) চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুঁইয়া বলেন, নিয়ম মেনে ভবন নির্মাণ করা হলে একসঙ্গে এত শ্রমিকের প্রাণ যেত না। ভবিষ্যতে শ্রমিকদের নিরাপত্তার বিষয়টি বিবেচনায় রেখেই সরকারকে শিল্প-কারখানা গড়ে তুলতে হবে। গতকাল রোববার রানা প্লাজা ট্র্যাজেডির নয় বছর পূর্তিতে গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিবৃতিতে ন্যাপের নেতারা এ কথা বলেন।


তারা বলেন, রানা প্লাজা ধসে আহত শ্রমিকদের চিকিৎসা ও পুনর্বাসন নিশ্চিত করা ও কালক্ষেপণ বন্ধ করে দায়ীদের বিচার, শাস্তি ও ক্ষতিপূরণ আইন সংশোধন করার দাবি জানিয়ে বলেন, লোভের বলি হয়ে মানুষগুলো রানা প্লাজা দুর্ঘটনায় চলে গেছেন না-ফেরার দেশে। যারা বেঁচে আছেন, তাদের অনেকে অঙ্গ হারিয়ে কর্মহীন হয়ে দুঃসহ জীবন-যাপন করছেন। এতিম হয়ে পড়েছে অনেক শিশু। এ এতিম সন্তানদের সুরক্ষার ব্যবস্থা করতে হবে। যারা চিকিৎসার অভাবে এখনো কষ্ট পাচ্ছেন, তাদের চিকিৎসা নিশ্চিত করতে হবে।


ধসে পড়া ভবনের জায়গায় শ্রমিকদের পুনর্বাসনে ব্যবহারের পদক্ষেপ নেওয়ার দাবি জানিয়ে নেতারা বলেন, রানা প্লাজা ধসের পর নয় বছর পার হয়ে গেছে। জমিটি সরকারের অনুক‚লে নেওয়া হলেও দীর্ঘদিন সেটি খালি পড়ে আছে। সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরের এ নিয়ে কোনো মাথাব্যথা নেই। এ ঘটনায় দায়ীদের শাস্তি হয়নি, বিচার প্রক্রিয়া চলছে ধীর গতিতে, আইএলও কনভেনশন ১২১ এর আলোকে ক্ষতিপূরণ আইন সংশোধনে দেশের শ্রমিক আন্দোলনের ঐক্যবদ্ধ দাবি উপেক্ষিত হয়েছে।


তারা আরও বলেন, দুর্ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করা না হলে নিহত ব্যক্তিদের আত্মা শান্তি পাবে না। রানাসহ সব দোষীদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করা, আজকের এ দিনটি জাতীয় শোক দিবস ঘোষণা করা, রানা প্লাজার জায়গাটুকু ক্ষতিগ্রস্ত শ্রমিকদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা ও শ্রমিকদের ক্ষতিপূরণ অবিলম্বে বাস্তবায়ন করা উচিত। সবাই বলে যে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়েছে। প্রকৃত অর্থে শ্রমিকদের কোনো ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়নি। যা দেওয়া হয়েছে তা হচ্ছে অনুদান। তাই ক্ষতিপূরণ দিতে হবে।


নেতারা বলেন, কর্মক্ষেত্রের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য দায়িত্ব পাওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর কর্মকর্তাদের দুর্নীতি ও অবহেলা, বিচারহীনতা ও দুর্ঘটনার দায় থেকে মালিককে দায়মুক্তি দেওয়ার নীতির কারণে কর্মক্ষেত্রে শ্রমিকের মৃত্যুর মতো অমানবিক ঘটনা অব্যাহত আছে। তারা নিরাপদ কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করতে দায়িত্ব অবহেলাকারীদের শাস্তির দৃষ্টান্ত স্থাপনের আহŸান জানান।

আরো পড়ুন