শিরোনাম :

  • জবানবন্দিতে বুলুসহ ১৫ বিএনপি নেতার নাম পেয়েছে পুলিশ উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত ২দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২ আইসিসির সেরা হওয়ার দৌড়ে বাংলাদেশের নাসুম
হট্টগোল আর মিছিলে মুখর উত্তরা আ’লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন
মিজানুর রহমান ও রেজানুর রহমান
৩০ জুলাই, ২০২২ ১০:৫৯:৪১
প্রিন্টঅ-অ+

রাজধানী উত্তরা আওয়ামী লীগের সম্মেলন হয়েছে ৩নং সেক্টর ফ্রেন্ডস ক্লাব মাঠে। শুক্রবার (২৯ জুলাই) বেলা তিনটায় এ সম্মেলন শুরু হয়ে চলে মাগরিবের নামাজের আগ পর্যন্ত। বিমান বন্দর, উত্তরা পূর্ব ও পশ্চিম এবং ১ ও ৫১ নং সাংগঠনিক ইউনিটের এ সম্মেলনে সাম্প্রতিক কালের সর্ববৃহৎ গণজয়ামেত করেন স্থায়ী নেতাকর্মীরা। সম্মেলনে নিজেদের প্রার্থীতার বিষয়ে যুক্তিকতা তুলে ধরতে পদ প্রত্যাশী নেতারা সর্বোচ্চ লোকবল নিয়ে মাঠে আসেন। এ সময় সু-বিশাল ফ্রেন্ডসক্লাব মাঠ ও আশপাশের এলাকা পূর্ন হয়ে যায়।


উত্তরা ফ্রেন্ডসক্লাব মাঠে জাতীয় সংগিত গেয়ে পতাকা উত্তোলন ও পায়রা উড়িয়ে  অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান। তবে সন্মেলনে চেয়ারে বসাকে কেন্দ্র করে দুগ্রুপের মধ্যে হাতাহাতির মত ঘটনা ঘটেছে।


অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়ালি বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, নেত্রীর নির্দেশে আমি স্ব শরীরে আসতে পারিনি। আগামী ডিসেম্বরে আওয়ামী লীগের জাতীয় সন্মেলন পরের ডিসেম্বরে জাতীয় নির্বাচন যথা সময়ে হবে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ষড়যন্ত্রকারী ও সাম্প্রদায়িক শক্তিকে মোকাবেলা করতে প্রস্তুত হতে হবে। তিনি সরকারের উন্নয়নমুলক কর্মকাণ্ড তুলে ধরে বলেন, জনগন কাজ দেখে আওয়ামী লীগকে ভোট দিবে বিএনপির কি অর্জন আছে যে তাহাদেরকে মানুষ ভোট দিবে।


উত্তরা পশ্চিম থানা আওয়ামী লীগের সদ্য সাবেক সভাপতি মনোয়ারুল ইসলাম রবিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে আরো বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ বাহাউদ্দিন নাসিম, সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম, নগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান, সাধারণ সসম্পাদক এস এ মান্নান কচি, স্বাগতিক আসনের সাংসদ আলহাজ্ব হাবিব হাসানসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দরা।


সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম এম পি বলেন,আওয়ামীলীগের ইতিহাসে এমন সন্মেলনের মাধ্যমে ইউনিট ওয়ার্ড কমিটি  কখনো হয়নাই। এবার এই কার্যক্রম আমাদের সাংগঠনিক কার্যক্রমকে স্বচ্ছ ও বেগবান করবে, যা আমাদের লক্ষ্যে পৌঁছুতে সহায়তা করবে।


বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাসিম বলেন,বিএনপি নির্বাচনে বিশ্বাস করেনা, তারা অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করে ফায়দা লুটে এদেশকে ব্যার্থ রাষ্ট্র বানাতে চায়। তবে আমরা সবাইকে নিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে মোকাবেলা করবো। ওরা আন্দোলনের ভয় দেখায় কিন্তু ওদের কোন নেতা নাই, ওদের কোন সংগঠন নাই, ওরা দেশে এবং দেশের বাহিরে বসে ষড়যন্ত্র করে। তাই সোনার বাংলাদেশ বিনির্মান করতে হলে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আগামীদিনে এগিয়ে যেতে হবে।


ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম মান্নান কচি বলেন, কোন হাইব্রিড অনুপ্রবেশ কারীকে নেতৃত্ব দেওয়া হবেনা।


সম্মেলন উপলক্ষে তিনটি থানা ও দুটি ওয়ার্ডের পদ প্রত্যাশী নেতারা প্রায় ৫০টির অধিক বড় বড় মিছিল নিয়ে সমাবেশ স্থলে প্রবেশ করেন। এদের মধ্যে বড় দুটি মিছিল নিয়ে আসেন উত্তরা পশ্চিম থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রার্থী ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আফসার উদ্দিন খান ও একই থানার সহ সভাপতি তরুন সমাজসেবক আলাউদ্দিন আল সোহেল। এরই বাইরে পশ্চিম থানা হয়ে বড় কয়েকটি মিছিল নিয়ে আসেন, যুবলীগ নেতা ও থানার সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী সেলিম খান, ৫১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শরিফুর রহমান, ইঞ্জিনিয়ার আনোয়ারুল ইসলাম, সদ্য সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাইদ সিদ্দিকী কাক্কা, একে আযাদ, আক্তারুজ্জামান, হাজী পাভেল, নজরুল ইসলামসহ অনেকে। উত্তরা পূর্ব থানায় সব চাইতে আকর্ষণীয় মিছিল নিয়ে আসেন, শফিকুল আলম মুক্তা, মতিউল হক মতি, সামছুদ্দিন লাভলু, জাবেদ সিদ্দিকী, খান মাহবুব, কতুব উদ্দিন ও লুৎপর রহমানপ্রমুখ। বিমানবন্দর থানার বড় মিছিল নিয়ে আসেন থানার সদ্য সাবেক সভাপতি শাহজাহান আলী মন্ডল, কামরুল হাসান বকুল, এ এস এম মকবুল হাসান, নুরুজ্জামান বাবলু, মোস্তাক আহমেদ, আনিসুর রহমান, ইব্রাহিম আলী ও নান্নু প্রমুখ। এর বাইরে উত্তরা ১ নং ওয়ার্ড থেকে সব চাইতে বড় মিছিলটি আনেন নুরু আমিন নুরু। এছাড়া মিছিল নিয়ে আসেন সালাউদ্দিন লাভলু, ফারুক হোসেন আকাশ, রেজয়ানুল রিকু, মামুনুর রশিদ, ইয়ামিনপ্রমুখ।


উত্তর সিটির ৫১ নং ওয়ার্ড থেকে সর্বাধিক মিছিল আনেন নেতাকর্মীরা। এরা হলেন, কবির হাসান, মাহাবুবুল আলম অরুন, নাসির উদ্দিন, মমতাজুল করিম, আবুল হোসেন মেম্বার, আলতাফ সরকারসহ অনেকে।


পরে সাংগঠনিক এই ৫ টি ইউনিটে প্রায় ৭০ জন নেতা বিভিন্ন পদে নিজেদের প্রার্থীতা ঘোষণা করেন। তবে নগর নেতারা এবার কমিটি দেওয়ার ক্ষেত্রে কঠোর থাকবেন বলে তাদের বক্তব্যে উঠে আসে। বিশেষ করে স্থানীয় সংসদ সদস্য ও ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব হাবীব হাসান এম পি তার বক্তব্যে বিষয়টি নিয়ে দলের স্পস্ট অবস্থান জানিয়ে দেন। একই সাথে উত্তরার আওয়ামী লীগের সৌহার্দ্যপূর্ণ অবস্থান নষ্ট করতে যেসব ষড়যন্ত্র চলছে, সেদিকে দলীয় নেতা-কর্মীদের সতকর্ত থাকার নির্দেশ দেন।

আরো পড়ুন