শিরোনাম :

  • নয়াপল্টনে বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ জবানবন্দিতে বুলুসহ ১৫ বিএনপি নেতার নাম পেয়েছে পুলিশ সেনা অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল সুদান, সংঘর্ষে নিহত ৭দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২
সালাহর জোড়া গোলে ম্যানইউকে ডুবালো লিভারপুল
২১ এপ্রিল, ২০২২ ১১:৪৫:১০
প্রিন্টঅ-অ+

নিজেরা জিততে হবে সবকটা ম্যাচে, অমঙ্গল কামনা করতে হবে ম্যানচেস্টার সিটিরও; শিরোপা জেতার জন্য লিভারপুলের সামনে এখন সমীকরণটা এমনই। লিভারপুল আরও একবার নিজেদের কাজটা সেরেছে, সেটাও দারুণ ঢঙেই।


মোহামেদ সালাহর জোড়া গোলে রেড ডার্বিতে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে ৪-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে কোচ ইয়ুর্গেন ক্লপের দল। সাময়িকভাবে চলে এসেছে লিগের শীর্ষেও। 


প্রিমিয়ার লিগে দুই দলের সবশেষ ম্যাচটা ইউনাইটেড নিশ্চয়ই ভুলেই যেতে চাইবে। সে ম্যাচে সালাহ করেছিলেন হ্যাটট্রিক, রেড ডেভিলরা ডুবেছিল নিজেদের মাঠে ৫-০ গোলে হারের বিষাদে। অ্যানফিল্ডে স্কারলাইনটা সেদিনের চেয়ে একটু 'ভদ্রস্থ' দেখাচ্ছে বটে, তবে তাতে ইউনাইটেডের দুঃখ কম হবে না একটুও। প্রিমিয়ার লিগের দুই লেগের লড়াই মিলিয়ে এর চেয়ে বড় সামগ্রিক ফলাফল যে রেড ডার্বিই দেখেনি আর কখনো! তার চেয়েও বড় বিষয়, দলটার শীর্ষ চারের আশার তরী যে ডুবতে বসেছে মাঝ দরিয়ায়, ম্যানইউ'র দুঃখী না হয়ে উপায় আছে? 


তবে ইউনাইটেডকে আগেই শোকের চাদরে মুড়িয়ে দিয়েছিল রোনালদোর সন্তান হারানোর দুঃসংবাদটা। যে কারণে রোনালদোকে ম্যাচে পানওনি কোচ র‌্যালফ র‌্যাংনিক। পর্তুগিজ মহাতারকাকে না পেয়ে জার্মান কোচ দলকে নামিয়েছিলেন ৩-৪-২-১ ছকে, রোনালদোর না থাকার ফলে সৃষ্ট শূন্যতা তিনি ঢাকতে চেয়েছিলেন আগের দিনই দুর্ঘটনার কবলে পড়া ব্রæনো ফের্নান্দেজকে আরেকটু বেশি আক্রমণের দায়িত্ব দিয়ে। তবে সে দায়িত্বে যে তিনি ডাহা ফেল, তা স্কোরলাইন দেখেই আঁচ করা যায় খানিকটা। প্রমাণ মিলছে পরিসংখ্যানেও, প্রতিপক্ষ গোলরক্ষক অ্যালিসন বেকারকে পরীক্ষায় কেবল একবারই ফেলতে পেরেছিল ইউনাইটেড। 


ওদিকে লিভারপুল আক্রমণ শানিয়েছে শুরু থেকেই। ৫ মিনিটে সাদিও মানের পাস থেকে ডান পাশে বিশাল ফাঁকা জায়গায় বল পেয়ে যান সালাহ। সেখান থেকে নিচু ক্রসে লুইস ডিয়াজ করেন গোল, মহারণে শুরুতেই এগিয়ে যায় লিভারপুল। এর আগে অবশ্য ইউনাইটেড কিছুটা তীব্রতা নিয়ে ম্যাচে আসার ইঙ্গিত দিয়েছিল, তবে সেই গোলটা যেন সেসব ইঙ্গিত মার্সি নদীতে ভাসিয়ে দেওয়ার যোগাড়যন্ত্র সেরে দিয়েছিল। 


সেই যে লিভারপুল ম্যাচে আধিপত্য দেখানো শুরু করল, তা চলল ম্যাচের শেষতক। ২২ মিনিটে সালাহ পেলেন তার প্রথম গোলের দেখা। বক্সে অনেকটা স্কুপ করার মতো করে সালাহকে পাস দিয়েছিলেন মানে, দারুণ এক ফার্স্ট টাচে আয়ত্বে নিতে বলটা জালে পাঠাল লিভারপুলের প্রাণভোমরা। বিরতির আগে আর গোলের দেখা পায়নি লিভারপুল। তাতে অবশ্য ইউনাইটেডের বড় হারের শঙ্কা উবে যায়নি। শুরুর ৪৫ মিনিটে যেভাবে ছড়ি ঘুরিয়েছে লিভারপুল, তাতে আরেকটা ৫-০ কে মনে হচ্ছিল সময়েরই ব্যাপার মাত্র। 


৬৬ মিনিটে মানের গোলে ইউনাইটেডের সে শঙ্কাটা আরও বাড়ে বৈকি। ৮৫ মিনিটে সালাহ বল পেলেন বক্সের একটু আগে, বক্সে থাকা অ্যারন ওয়ান বিসাকাকে বোকা বানিয়ে করেন চতুর্থ গোলটা। যোগ করা সময়ে একটা সুযোগ নষ্ট করেন সালাহ, নাহয় হ্যাটট্রিকটাও হয়ে যেত তার। তাতে কেবল স্কোরলাইনটাই আর বড় হয়নি, তবে তাই দলের লিগ জেতার আশা টিকিয়ে রাখার জন্য ছিল যথেষ্ট। এই জয়ের পর ৩২ ম্যাচে ৭৬ পয়েন্ট নিয়ে সাময়িকভাবে লিগের শীর্ষেও চলে এসেছে দলটি। যদিও এক ম্যাচ কম খেলে  গ সিটি নিজেদের পরের ম্যাচ জিতলে ক্লপের দল চলে যাবে দ্বিতীয় স্থানে। 


ওদিকে ইউনাইটেড নেমে গেছে ছয়ে। ৩৩ ম্যাচে ৫৬ পয়েন্ট দলটির। এই অবস্থানে লিগ শেষ করলে ইউনাইটেড চ্যাম্পিয়ন্স লিগ তো বটেই, ইউরোপা লিগও খেলা হবে না দলটির। নতুন কোচ এরিক টেন হ্যাগ আসার আগে যে এই পরিস্থিতির পরিবর্তন চাইবেন র‌্যাংনিক, তা বলাই বাহুল্য। 

আরো পড়ুন