শিরোনাম :

  • জবানবন্দিতে বুলুসহ ১৫ বিএনপি নেতার নাম পেয়েছে পুলিশ উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত ২দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২ আইসিসির সেরা হওয়ার দৌড়ে বাংলাদেশের নাসুম
এত অস্থির হলে হবে না, টেস্ট সংস্কৃতি নিয়ে পাপন
২৭ জুন, ২০২২ ১৪:২৯:৫১
প্রিন্টঅ-অ+


টেস্ট আঙিনায় ২০ বছর কাটিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ। কালেভাদ্রে সাফল্য মিলেনি, ব্যাপারটা এমন নয়; কিন্তু হিসাব করতে গেলে ব্যর্থতার পাল্লাটাই ভারি হবে।

এর চেয়েও বড় কথা বাংলাদেশে গড়ে ওঠেনি দীর্ঘ মেয়াদে সাফল্য পাওয়ার সংস্কৃতি।  

এ নিয়ে সেন্ট লুসিয়া টেস্ট চলাকালীন কথা বলেছেন হেড কোচ রাসেল ডমিঙ্গোও। রোববার রাজধানীর অফিসার্স ক্লাবে অ্যাওয়ার্ড নাইট অনুষ্ঠান করে ক্রিকেট কমিটি অব ঢাকা মেট্টোপলিটিন (সিসিডিএম)। ওই অনুষ্ঠানে এসে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন জানিয়েছেন, টেস্ট সংস্কৃতি গড়ে তুলতে ধৈর্য ধরতে হবে।

তিনি বলেছেন, ‘আমাকে যদি ২২ বছরের কথা বলেন, আমরা দেশের মাটিতে জেতা শুরু করেছি। তাই বলে সবগুলো যে জিতে যাব তা না। আমরা কয়েকটা টেস্ট ম্যাচ জিতেছি বড় দলের সঙ্গে, এটা একটা উন্নতি। বিদেশে গিয়ে যে আমরা জিততে পারি, সেটার একটা আভাস পেয়েছি। তাই বলে টেস্টে যে আমরা একটা ভালো দল হয়ে গেছি সেটা প্রশ্নেই উঠে না। সংস্কৃতি গড়ে উঠতে সময় লাগবে, প্রায় ২৬ বছর লেগে গেছে ভারতের প্রথম ম্যাচ জিততে, এত অস্থির হলে হবে না। ’

এরপর অন্য কয়েকটি দেশের উদাহরণ টেনে পাপন বলেছেন, ‘বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন নিউজিল্যান্ড, তারা বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর ৮ সিরিজে ২টা জিতেছে, টেস্ট ম্যাচ দুটা জিতে ড্র করেছে ওরা বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়েও তো পারছে না। তাই বলে কি খারাপ হয়ে গেছে। এত হতাশ হওয়ার কিছু নাই। ’

‘আমাদের বিশ্বাস রাখতে হবে, আমাদের ছেলেদেরকে একটা জিনিস সত্যি এই টানা খেলার মধ্যে আপনি কালচারটা তৈরি করবেন কীভাবে, আপনি বলবেন ঘরোয়া ক্রিকেট। কিন্তু টানা ট্যুর করে কোন ছেলেটা জাতীয় দলের সে ঘরোয়া ক্রিকেট খেলতে পারবে? আমাদের ঘরোয়া ক্রিকেট খেলার সুযোগই তো নাই, তাহলে আপনি উন্নতিটা করবেন কীভাবে?’

তারকাদের ঘরোয়া ক্রিকেট খেলার বিকল্পও বের করছেন জানিয়ে বিসিবি সভাপতি বলেছেন, ‘একমাত্র অপশন হচ্ছে, নতুন একটা সেট তৈরি করা। যেটা আসলে এর আগে আমরা চিন্তা করিনি, এখন চিন্তা করছি। আমাদের আলাদা একটা সেট থাকবে যারা এই জাতীয় দলের কোনো খেলা খেলবেন না, তারা ঘরোয়া ক্রিকেট খেলবে দেশে এবং দেশের বাইরে। ’


আরো পড়ুন