শিরোনাম :

  • নয়াপল্টনে বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ জবানবন্দিতে বুলুসহ ১৫ বিএনপি নেতার নাম পেয়েছে পুলিশ সেনা অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল সুদান, সংঘর্ষে নিহত ৭দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২
তৃতীয় ধাপে ইউপি নির্বাচন
দলীয় মনোনয়ন পেতে নেতাদের দৌড়ঝাঁপ
কায়সার সামির
১৭ অক্টোবর, ২০২১ ১৯:৪৪:৪২
প্রিন্টঅ-অ+

নির্বাচন কমিশন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর সরগরম হয়ে উঠেছে রাজনৈতিক অঙ্গন। মুন্সীগঞ্জের দুই উপজেলার ২১টি ইউনিয়ন পরিষদে কারা চেয়ারম্যান প্রার্থী হচ্ছে এই নিয়ে চলছে নেতাদের দৌড়ঝাঁপ। 


দলীয় মনোনয়ন পেতে চেষ্টা চলছে পুরোদমে। নির্বাচনকে সামনে রেখে স্থানীয় রাজনীতিতে সক্রিয় হয়ে উঠছে নেতাকর্মীরা। এদিকে ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সরগরম থাকলেও মাঠে নেই বিএনপিসহ অন্যান্য দল।


চেয়ারম্যান ও মেম্বার পদে অনেকেই সম্ভাব্য প্রার্থী হতে প্রস্তুতি নিয়ে শুরু করেছে নিজ এলাকায় গণসংযোগ। তবে, তৃণমূল পর্যায়ে সাধারণ জনমনে প্রশ্ন কারা হচ্ছেন এবার নৌকার মাঝি? সেই পরিপ্রেক্ষিতেই ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে চেয়ারম্যান ও মেম্বার পদে সম্ভাব্য প্রার্থীরা নড়েচড়ে উঠছেন। শুরু করেছেন তৎপরতা। ভোটারদের কাছে জানান দিচ্ছে নিজের পরিচয়। 


অনেকে গণসংযোগ, মতবিনিয়ম সভা শুরু করেছে বিভিন্ন কমিটির নেতাদের সঙ্গে। আওয়ামী লীগ দলীয় মনোনয়ন নিতে জেলা ও কেন্দ্রের শীর্ষ নেতাদর আশীর্বাদ পেতে প্রতিয়িত রাখছে যোগাযোগ। একই সঙ্গে স্থানীয় নেতাকর্মীদের সমর্থন পেতে ঘরোয়া বৈঠকসহ সাংগঠনিক তৎপরতা বাড়িয়েছে। ফলে দলের মধ্যে নানামুখী গ্রুপিং ও লবিং দেখা যাচ্ছে।


জানা গেছে, আসন্ন তৃতীয় ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মুন্সীগঞ্জ সদর ও টঙ্গীবাড়ি উপজেলার ২১টি ইউনিয়নে আগামী ২৮ নভেম্বর ভোট গ্রহণ। এ নির্বাচনে সরকারি দল আওয়ামী লীগের নৌকার মাঝি হতে সদর উপজেলায় ৯টি ইউনিয়ন থেকে ৬২টি জন আবেদন করেছে। ৬২টি আবেদনের মধ্যে পঞ্চসার ইউনিয়ন থেকে ৭ জন, রামপাল ইউনিয়নে ৫ জন, বজ্রযোগীনি ইউনিয়নে ৫ জন, মহাকালী ইউনিয়নে ৮ জন, আধারা ইউনিয়নে ১১ জন, বাংলাবাজার ইউনিয়নে ৫ জন, শিলই ইউনিয়নে ৮ জন, চরকেওয়ার ইউনিয়নে ৪ জন এবং মোল্লাকান্দি ইউনিয়ন থেকে ১২ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী হওয়ার জন্য আবেদন করেন। 


এদিকে মেম্বার প্রার্থীরা নির্বাচন করতে তাদের ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে গণসংযোগ শুরু করেছেন। প্রার্থীদের তালিকায় বর্তমানের পাশাপাশি সাবেকসহ নতুন মুখও রয়েছেন। ঐসব প্রার্থী আওয়ামী লীগসহ অন্যান্য দলের সমর্থন পেতে জোর তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন।


জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয় থেকে জানা গেছে, ইউনিয়ন নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী চূাড়ান্ত করতে সাংগঠনিক নিয়ম অনুযায়ী প্রার্থীর অতীত কর্মকান্ড বিবেচনায় করা হয়। তিনভাগে তালিকা পাঠানো যায়, ভোটাভোটির মাধ্যমে, উভয় সম্মতিতে ও জনমত জরীপ করে। তাছাড়া জেলা-উপজেলা এবং সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক মিলিয়ে ৬ সদস্যে স্থানীয় মনোনয়ন বোর্ড প্রার্থী ঠিক করে মনোনয়নের সুপারিশ পাঠাবে কেন্দ্রে।


পরে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় স্থানীয় সরকার নির্বাচন মনোনয়ন বোর্ডের সভায় প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে। আওয়ামী লীগের কোনো ইউনিটে পদ-পদবী নাই এমন ব্যক্তিকে মনোনয়নের জন্য সুপারিশ পাঠানোর সুযোগ নাই বলেও জানানো হয়। 


আমার বার্তা/ সি এইচ কে

আরো পড়ুন