শিরোনাম :

  • নয়াপল্টনে বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ জবানবন্দিতে বুলুসহ ১৫ বিএনপি নেতার নাম পেয়েছে পুলিশ সেনা অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল সুদান, সংঘর্ষে নিহত ৭দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২
ধর্ম ত্যাগ করায় পৈত্রিক সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত!
রাব্বি ইসলাম, মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধিঃ
২৮ মার্চ, ২০২২ ১৭:৫৬:২২
প্রিন্টঅ-অ+

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে হিন্দু ধর্ম ত্যাগ করে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করায় সহোদর ভাইদের রোষানলে পড়েছেন এক যুবক। তার ভাইয়েরা তাকে ভোগদখলীয় সম্পত্তি থেকে বেদখল ও বঞ্চিত করার চেষ্টা করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।


ভুক্তভোগী ওই যুবকের নাম মিলন আহম্মেদ। ইসলাম ধর্ম গ্রহণের পূর্বে যার নাম ছিল বিজয় সাও। মির্জাপুর পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডের কর্মকার পাড়া এলাকার বাসিন্দা তিনি।


জানা গেছে, ১৯৯৯ সালে বাবা লক্ষণ সাওয়ের মৃত্যুর ১৪ বছর পর ২০১৩ সালে সনাতন ধর্ম ত্যাগ করে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন বিজয় সাও। এরপর ২০১৪ সালে শিমু নামের এক মেয়েকে বিয়েও করেন তিনি। বিয়ের কিছুদিন পরই বাবার মৃত্যুর পর পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া ও ভোগ দখলীয় সম্পত্তি থেকে তাকে বঞ্চিত করার চেষ্টা শুরু করেন তার ভাই রনজিৎ সাও ও সঞ্জয় সাও। এনিয়ে তার বিরুদ্ধে টাঙ্গাইল কোর্টে মোকদ্দমাও করেন তারা। কিন্তু মামলার রায়ে পরাজিত হন।


আদালতে করা রনজিৎ সাও ও সঞ্জয় সাওয়ের করা মোকদ্দমা নং-৫৬/২০২১। ওই  মোকদ্দমায় আদালত রনজিৎ সাও গংয়ের দাবি না মঞ্জুর করেন এবং সিদ্ধান্ত দেন যে, (বিবাদী- মিলন আহম্মেদ, সাবেক বিজয় সাও) হিন্দু ধর্ম ত্যাগ করে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলেও উত্তরাধিকার শুরু হওয়ার সময় তিনি হিন্দু ধর্মাবলম্বী থাকায় পৈত্রিক সম্পত্তি ওয়ারিশমূলে প্রাপ্ত হওয়ার পরবর্তী সময়ে ধর্মত্যাগ করার কারণে পৈত্রিক ওয়ারিশ বঞ্চিত হবেনা এবং উক্ত সম্পত্তি থেকে তাকে বঞ্চিত করারও আইনগত কোন সুযোগ নেই।


এদিকে পৈত্রিকসূত্রে পাওয়া প্রাপ্ত সম্পত্তির খাজনা-খারিজসহ যাবতীয় দালিলিক প্রমাণ থাকার পরও বাধাহীনভাবে সেই সম্পত্তি ভোগ দখল করতে পারছেন না ভুক্তভোগী মিলন আহম্মেদ। এনিয়ে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন তিনি।


মিলন আহম্মেদ অভিযোগ করে বলেন, সনাতন ধর্ম ত্যাগ করে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করার অজুহাতে আমার ভাইয়েরা আমাকে সম্পত্তি থেকে উচ্ছেদ করতে চায়। এনিয়ে আমি চরম আতঙ্কের মধ্যে আছি। যেকোন সময় খুনও হয়ে যেতে পারি। আইনগতভাবে আমি সম্পত্তি না পেলে দাবি ছেড়ে দিতে প্রস্তুত আছি। আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। ধর্ম ত্যাগ করাই কী আমার অপরাধ!


তবে সঞ্জয় সাও বলেন, ১৯৫০ সালের সনাতন ধর্ম আইন অনুযায়ী ধর্মান্তরিত হওয়ার বিজয় কোন পৈত্রিক সম্পত্তি পাবেনা। এ বিষয়ে আদালতে মামলা চলমান।


এ ব্যাপারে মির্জাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আলম চাঁদ বলেন, দু’পক্ষই থানায় অভিযোগ দিয়েছেন। বর্তমান কাগজপত্র বিজয়ের নামে রয়েছে। তাই তাদের স্থানীয় বা আইনগতভাবে বিষয়টি মিমাংসা করার জন্য পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

আরো পড়ুন