শিরোনাম :

  • আজ রাজধানীর যেসব এলাকায় গ্যাস থাকবে না আজ দেশের ১৯ অঞ্চলে ঝড়-বৃষ্টি হতে পারে ব্রাজিলে করোনায় মৃতের সংখ্যা ৬৫ হাজার ছাড়িয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে একদিনেই করোনায় আক্রান্ত অর্ধলাখ
দুনিয়ার অদ্ভুত কিছু আইন
আমার বার্তা ডেস্ক :
০৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১১:৫০:৫৯
প্রিন্টঅ-অ+


দেশে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য আইন-কানুন বা নিয়ম বানানো হয়। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে অন্যসব বিষয়ে ভিন্নতা থাকলেও আইনের ক্ষেত্রে প্রায় মিল দেখা যায়। কিন্তু তারপরও এক এক দেশে এক এক ধরনের ব্যতিক্রমী আইন প্রচলিত রয়েছে। তবে দুনিয়ায় এমন কিছু আইন আছে যেগুলো শুনতে একটু হাস্যকর এবং অদ্ভুত বলে মনে হয়। যেগুলো বিশেষজ্ঞরা শনাক্ত করেছেন অদ্ভুত আইন হিসেবে। আসুন জেনে নেই বিভিন্ন দেশের কিছু অদ্ভূত আর বিচিত্র আইন-কানুনের কথা।

১. হংকংয়ে একটা আইন আছে যদি কারো স্ত্রী পরকীয়া করে তবে স্বামী তাকে খুন করতে পারে। তবে শর্ত একটাই খুন করতে হবে খালি হাতে। তবে যে লোকের সাথে পরকীয়া করেছে তাকে অস্ত্র দিয়ে খুন করতে পারবে।

২. আমেরিকার কলোরাডতে যৌক্তিক কোনো কারন না দেখিয়ে বৃষ্টির পানি সংগ্রহ করা এক ধরনের চুরি। প্রতারনা অথবা ছিনতাইয়ের পর্যায়েও পড়ে। আদালত এ ব্যাপারে বলেছেন, বৃষ্টির পানি এভাবে ধরে রাখলে কৃষিকাজের জন্য পানি পাওয়া যাবে না। অর্থনীতিতে খারাপ প্রভাব পড়বে।

৩. আমেরিকার আরিজোয়ানাতে শিশুরা পেয়াজ খেয়ে স্কুলে যেতে পারবে না বলে আইন আছে। ১৮৮০ সালে এই পেয়াজ নিষিদ্ধকরণ আইন পাশ হয়। আমেরিকার আরেকটি আইন হল কেউ রসুন খেয়ে গির্জা থিয়েটার ইত্যাদিতে যেতে পারবে না। ম্যাসাটুচেসের একটা আইন কেউ গির্জায় চীনাবাদাম খেতে পারবে না।

৪. ক্যালিফোর্নিয়ার সুসানভিলে শব্দ করে সুপ খাওয়া অপরাধ। মায়ামীতে পুরুষের স্ট্র্যাপলেস গাউন পরে জনসমক্ষে যাওয়া আইনত অপরাধ।

৫. ইলিনয়িস রাজ্যে আরেকটি আইন রয়েছে শীতকালে কোনো বাচ্চা জমে থাকা তুষার দিয়ে স্নো বল বানিয়ে গাছের দিকে ছুঁড়তে পারবে না।

৬. মিশিগানে কঠোর আইন রয়েছে, যদি দোতলার চেয়ে উঁচু কোনো দালান তোলা হয়, তাহলে সেই দালানের প্রতিটা জানালায় একটা করে দড়ি ঝুলিয়ে রাখতে হবে।

৭. আমেরিকার কলাম্বিয়া প্রদেশে মেয়ের বাসর রাতে তার মার উপস্থিতি বাধ্যতামূলক।

 ৮. আলাস্কায় কোনো গ্রিজলি ভালুককে মোটেও বিরক্ত করা যাবে না।

৯. গুয়ামের আইন অনুসারে কোন কুমারী মেয়ে বিয়ে করতে পারে না। তাই কিছু লোক আছে যারা পয়সার বিনিময়ে কুমারিত্বের অভিশাপ মুক্ত করার কাজ করে। মেয়ের বাবা-মা সাধারণতঃ এই কাজের জন্য অনেক টাকা খরচ করেন।এরা কাজ শেষে সার্টিফিকেট দেয়।

১০. লেবাননের আইন অনুসারে কোন পুরুষ লোক গৃহপালিত পশুর সাথে সহবাস করতে পারে। কিন্তু পশুটা অবশ্যই মাদী হতে হবে। মদ্দা পশুর সাথে সহবাস করার শাস্তি হলো মৃত্যুদন্ড।

১১. এথেন্সের পুলিশ কোনও গাড়ির চালকের লাইসেন্স বাতিল করে দেবার ক্ষমতা রাখে যদি ঐ চালক গোসল না করে গাড়ি চালায় অথবা চালকের বেশভূষা না ঠিক থাকে।

১২. মস্কোতে আবহাওয়াবিদরা ভুল তথ্য প্রচার করলে তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার বিধান আছে।

১৩. ইংল্যান্ডে পার্লামেন্টে মৃত্যুবরণ করা বেআইনি।

১৪. ফ্রান্সে শুকরের নাম নেপোলিয়ন রাখা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

১৫. যুক্তরাষ্ট্রের মিনেসোটায় মাছের সাথে পুরুষের যৌন সম্পর্ক করা অবৈধ।

১৬. সিঙ্গাপুরে চুইং গাম অবৈধ।

১৭. ভারতে রবিবারে গাড়ি বিক্রি করা আইনত দন্ডনীয়।

১৮. জাপানে কোন মেয়েকে ছেলে ডেটিংয়ে যেতে বললে মেয়েটি আইন অনুসারে না করতে পারবে না।

১৯. জাপানে কারো বড় ভাই তার গার্লফ্রেন্ডকে বিয়ে করে ছোট ভাইকে সম্মানীত করতে চাইলে আইন অনুসারে গার্লফ্রেন্ড অসম্মতি জানাতে পারবে না।

২০. জাপানে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত বিল্ডিংযে মেয়েদের ব্রা না পড়া আইনত দন্ডনীয়।

২১. ১৬০৪ সালে ইংল্যান্ডের রাজা কিং জেমস witch craft act নামে একটা আইন প্রনয়ন করেন।এই আইনে যারা কালোশক্তি মানে ব্ল্যাক ম্যাজিক ব্যবহার করবে তাদের মৃত্যুদন্ড দেয়ার বিধান রাখা হয়।সাধারনত যারা কৃষ্ণশক্তি বা এই ব্ল্যাকম্যাজিক ব্যবহার করত তাদের বলা হত ডাইনি।ডাইনিদের পুড়িয়ে মারা হত,যদিও বিধান ছিল ফাসিতে ঝুলিয়ে মারা।এই আইনের আয়তায় প্রায় ৭০ হাজার মানুষকে মারা হয়। ফ্রান্সের সেই বিখ্যাত জোয়ান অব আর্ক কে এই আইনের অধীনেই পুড়িয়ে মারা হয়েছিল। তিনি ফ্রান্সকে ইংল্যান্ডের শাষন থেকে মুক্ত করতে চেয়েছিলেন।১৯৫১ সালে ব্রিটিশ পার্লামেন্ট এই আইন বাতিল করে দেয়।

২২. প্রাচীন ভারতে সনাতন ধর্মে এক আইন ছিল সতীদাহ প্রথা।এই প্রথায় স্বামীর মৃত্যুর পর স্ত্রীদের সহমরনে যেতে বাধ্য করা হত। কোনও ধনী লোকের মৃত্যুর সম্পত্তি অধিকার করার লোভে তার আত্মীয়রা তার সদ্যবিধবা স্ত্রীকে ধরে বেঁধে, ঢাক-ঢোলের শব্দ দ্বারা তার কান্নার আওয়াজকে চাপা দিয়ে তার স্বামীর সাথে চিতায় শুইয়ে পুড়িয়ে মারতো।পরবর্তীতে ১৮২৯ সালে ৪ ডিসেম্বর রামমোহন রায়ের সামাজিক আন্দোলনের ফলে উইলিয়াম বেন্টিংক এই প্রথা বেঙল প্রেসিডেন্সিতে বাতিল করেন।

২৩. বার্বার, নর্থ ক্যালোরিনাতে একটি আইন আছে তা হল কুকুর বিড়াল ঝগড়া করতে পারবে না।তাদের নিয়ম হল কুকুর ঝগড়া করবে কুকুরের সাথে,বিড়াল বিড়ালের সাথে।এজন্যই কুত্তা বিলাইয়ের ঝগড়া নিষিদ্ধ।

২৪. ক্লীভলেন, ওহিওতে ইদুর ধরতে লাইসেন্সের দরকার হয়। লাইসেন্স বিহীন ইদুর ধরা বেআইনী।

২৫. সিকাগো, ইলিনিয়স এ কুকুর কে হুইস্কি দেয়া নিষিদ্ধ।

২৬. লিটল রক, আর্কানসেন্স এ রাত ৬ টার পর কুকুরের ডাকা নিষিদ্ধ।এ আইন টি কুকুর সম্প্রদায়ের জন্য।

২৭. নিউইয়র্ক এ ট্রাম অথবা ট্রলি কার থেকে খরগোশ শিকার নিষিদ্ধ।

২৮. কলোরাডোতে ঘুমন্ত মহিলাকে চুমু খাওয়া বে আইনি।

২৯. মিশিগানে কোনও নারী স্বামীর অনুমতি ছাড়া মাথার চুল বিক্রি করতে পারবে না।চুল স্বামীর সম্পত্তি হিশেবে গন্য!

৩০. Galesburg, Illinois এ বেসবল ব্যাট দিয়ে ইদুর মারা বে আইনি।

৩১. Fairbank আরেকটা আইন ইদুরের জন্য।এ আইনে তাদের বলা হয়েছে শহরের রাস্তায় সেক্স করা তাদের জন্য নিষিদ্ধ।

৩২. Ohio তে কোনো পুরুষের পোস্টারের সামনে দাঁড়িয়ে পোশাক খোলা মহিলাদের জন্য নিষিদ্ধ।

৩৩. Newyork এ ছাদ থেকে লাফানোর শাস্তি মৃত্যুদন্ড।

৩৪. Florida তে নিজের সন্তান বিক্রি করা বে আইনি।

৩৫. Arkansas এ মাসে একবার বউ পেটানো যাবে।এটাই আইন।কিন্তু দুই বার পিটালেই সমস্যা!!

৩৬. Nevada তে কোন ব্যাক্তি যদি বউ পেটানো তে ধরা খায় তাহলে আইন অনুসারে তাকে আট ঘন্টা বেধে রাখা হবে।তার বুকের মধ্যে একটা পোস্টার সেটে দেয়া হবে, “ওয়াইফ বিটার বা বাংলায় বিশিষ্ট বউ মারা বিশেষজ্ঞ।

৩৭. Thailand এ ত্রিশ বছরের বেশী বয়েসী অবিবাহিত মহিলারা দেশের সম্পত্তি হিশেবে গন্য হবে।এটাই আইন।

৩৮. Vermont এ কোন মহিলাকে নকল দাত লাগাতে স্বামীর অনুমতি লাগে।

৩৯. Wisconsin এর আইন অনুযায়ী যে কেউ তার ঘর(গৃহ, বসত বাটি) কে বিবাহ করতে পারবে।

৪০. Wisconsin এ মেয়দের চুল কাটা নিষিদ্ধ।

৪১. Samoa তে নিজের বউয়ের জন্মদিন ভূলে যাওয়া বে আইনি।

৪২. Mohave county, Arizona তে কেউ সাবান চুরি তে ধরা পড়লে তার শাস্তি হল ঐ সাবান দিয়েই নিজেকে ধুতে থাকবে যতক্ষন না সাবান পুরো শেষ হয়।

৪৩. Venice এ ১১৭৩ সালের পর থেকে মরা ও বে আইনি। মানে সেখানে মৃত্যুবরন করাটাও বে আইনি কাজ। মানুষ শান্তিতে মরবে তার ও কোন উপায় নাই।

উল্লেখ্য, এরমধ্যে কিছু আইন রহিত হয়ে গেছে। তবুও পাঠকদের জানার জন্য দেওয়া হলো।



আমার বার্তা/০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০/জহির

 


আরো পড়ুন