শিরোনাম :

  • নয়াপল্টনে বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ জবানবন্দিতে বুলুসহ ১৫ বিএনপি নেতার নাম পেয়েছে পুলিশ সেনা অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল সুদান, সংঘর্ষে নিহত ৭দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২
মুফতী আবদুস সালাম চাটগামী রহ. ছিলেন নিভৃতচারী জ্ঞানসাধক
১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ২১:০৭:০৭
প্রিন্টঅ-অ+

মৃত্যু। মাটির এই পৃথিবীর সবচেয়ে কঠিন বাস্তবতা। বিশ্বাসী-অবিশ্বাসী সর্বমহলেই যার স্বীকৃতি রয়েছে অপরিহার্যরূপে। প্রতিদিনই অসংখ্য প্রাণী মৃত্যুর মিছিলে শরীক হচ্ছে। দুদিন আগে পরে আমরা সবাই সে মিছিলের যাত্রী। মৃত্যুর কাছে আমরা  বড়ই অসহায়। কখন কার ডাক চলে আসে বুঝা বড় দায়। বিদায়ের এই তালিকায় কখন কার নাম উঠে আসে বলা অসম্ভব। আবহমান কাল থেকেই সবাই এই বাস্তবতার মুখোমুখি। 


মৃত্যুর এই ধারাবাহিকতা অব্যাহত আছে এবং চলতেই থাকবে। প্রতিটি মৃত্যুই  বেদনাদায়ক। তবুও কিছু কিছু মৃত্যু আছে যা দিগদিগন্তে শোকের আবহ ছড়িয়ে দেয়। হৃদয়ে হৃদয়ে কান্নার জোয়ার বয়ে যায়। জনপদ থেকে জনপদে দীর্ঘকাল সে মৃত্যুর অনিঃশেষ হাহাকার বিরাজ করে। একটি জাতির মৌলিক কাঠামোতে কাঁপন ধরিয়ে দেয়। অনন্তকাল তাদের শূন্যতা অনুভব হতে থাকে।


বরকতময় এই মিছিলের একজন গর্বিত সদস্য ছিলেন নিভৃতচারী প্রচারবিমুখ এক জ্ঞানসাধক দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার প্রাচীন শিক্ষাপীঠ ঐতিহ্যবাহী দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম মাদরাসার বরেণ্য মুহাদ্দিস বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় ইসলামী আইনজ্ঞ (মুফতিয়ে আজম) মুফতি আবদুস সালাম চাটগামী (রহ.)। যিনি জ্ঞানসাধনায় অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করে একটি ঈর্ষণীয় জীবনযাপন শেষে লক্ষ লক্ষ ছাত্র ভক্ত অনুরাগীদের কাঁদিয়ে গত ৮ই সেপ্টেম্বর ২০২১ বুধবার ইন্তেকাল করেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। বুধবার সকাল সাড়ে ১১টায় হাটহাজারী মাদরাসার পরিচালনা কমিটির পরামর্শ সভা চলাকালে তিনি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। এরপর অ্যাম্বুলেন্স করে হাটহাজারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। উল্লেখ্য যে, মৃত্যুর কিছুক্ষণ আগে মুফতি সাহেব হাটহাজারী মাদরাসার মহাপরিচালক পদে নিযুক্ত হন।


জন্ম ও পড়াশোনা : মুফতি আব্দুস সালাম চাটগামী (রহ.) ছিলেন একজন ক্ষণজন্মা মহামনীষী। আল্লাহভীরু ও উচ্চতর যোগ্যতা সম্পন্ন আলেম হিসেবে তিনি সবার কাছে অত্যধিক গ্রহণযোগ্য ও সম্মানিত ছিলেন। শুধু তাই নয়, বরং পাকিস্তান, ভারত ও বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় ইসলামী আইন বিশেষজ্ঞদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন তিনি। 


মুফতি আব্দুস সালাম চাটগামী (রহ.) ১৯৪৩ সালে মোতাবেক ১৩৬৩ হিজরিতে দক্ষিণ চট্টগ্রামের আনোয়ারা থানার নলদিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।  


পাকিস্তানে উচশিক্ষা : ১৯৬৭ সালে বাংলাদেশের (প্রথম) মুহাদ্দিস আল্লামা আবদুল ওয়াদুদ (রহ.)-এর নির্দেশনাক্রমে মুফতি আবদুস সালাম (রহ.) পাকিস্তানে পাড়ি জমান। সেখানে তিনি বিশ্বখ্যাত প্রতিষ্ঠান জামেয়াতুল উলুম আল ইসলামিয়া আল্লামা বান্নুরি টাউন করাচিতে ভর্তি হন। তৎকালীন বিশ্ববিখ্যাত মুহাদ্দিস আল্লামা মুহাম্মদ ইউসুফ বানুরি (রহ.)-এর তত্ত¡াবধানে প্রথম বছর তিনি উচ্চতর হাদিস শাস্ত্র নিয়ে পড়াশোনা করেন। পরের বছর সেখানে ইফতা বিভাগ চালু হয়। এ সময় তিনি আল্লামা বানুরী (রহ.)-এর নির্দেশে ইফতা বিভাগের প্রথম ব্যাচের শিক্ষার্থী হিসেবে আল ফিকহুল ইসলামী (ইসলামী আইনশাস্ত্র) নিয়ে উচ্চতর পড়াশোনা করেন। এ সময় হাদিস ও ফিকাহ বিষয়ক গভীর ব্যুৎপত্তি অর্জনে তিনি অসংখ্য গ্রন্থ অধ্যয়ন করেন, যার ফলে ইসলামী আইন ও হাদিস বিষয়ে তিনি উপমহাদেশের একজন বরেণ্য ব্যক্তিত্বে পরিণত হন।


রচনাগ্রন্থ : মুফতি আবদুস সালাম (রহ.) লেখালেখির অঙ্গনেও যথেষ্ট কৃতিত্বের স্বাক্ষর রাখেন। তিনি একজন সফল লেখক। তাঁর রচিত ‘জাওয়াহিরুল ফাতওয়া’ ফতোয়া জগতে সাড়া জাগানো নির্ভরযোগ্য একটি গ্রন্থ। ৪ খন্ডের অনবদ্য এ গ্রন্থটি ছাড়াও করাচির প্রথম সারির প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান থেকে বাংলাদেশি এ আলেমের একাধিক গ্রন্থ মুদ্রিত হয়। তাঁর উল্লেখ্যযোগ্য গ্রন্থের মধ্যে আছে, মাকালাতে চাটগামী, করোনাকালীন সমস্যা ও তার শরয়ী বিধান, দিল জাগানো সুরভী মালফুজাতে বোয়ালভী (রহ.), বিতর নামায ও রাকাত সংখ্যা, কুরবানী আহকাম ও জরুরি মাসায়েল, আহকামে তাওহিদ ও রিসালত ইত্যাদি। 


দেশে ফিরে হাটহাজারি মাদরাসায় যোগদান : ২০০০ সালে মুফতি আব্দুস সালাম চাটগামী ইসলামী শিক্ষা প্রসারে  নিজ দেশে ফিরে আসেন। কথিত আছে যে, করাচির বান্নুরী টাউন থেকে চলে এলেও বিশ্বখ্যাত প্রতিষ্ঠানে অন্য কাউকে প্রধান মুফতি হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়নি। বরং দেশে ফিরেও বিশেষ সম্মাননা হিসেবে মুফতি আব্দুস সালাম চাটগামী প্রধান মুফতি পদে ছিলেন। এরপর দারুল উলুম হাটহাজারীর মহাপরিচালক আল্লামা শাহ আহমদ শফী (রহ.)-এর আহবানে ২০০১ সালে হাটহাজারী মাদরাসায় প্রধান মুফতি হিসেবে যোগদান করেন। তাঁর নিয়োগের পর হাটহাজারি মাদরাসায় ২ বছর মেয়াদি উচ্চতর হাদিস শাস্ত্র বিভাগ চালু হয়। 


লেখক : খতিব, আউচপাড়া জামে মসজিদ টঙ্গী, গাজীপুর


আমার বার্তা/ সি এইচ কে


 

আরো পড়ুন