শিরোনাম :

  • পার্বত্য অঞ্চলের উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করছে সরকার : প্রধানমন্ত্রী পেশাগত দক্ষতা উন্নয়নে জ্ঞান অর্জনের বিকল্প নেই : স্পিকার আন্তর্জাতিক পর্বত দিবস আজ পার্বত্য অঞ্চলের পরিবেশ রক্ষায় তরুণদের সম্পৃক্ত করার আহ্বান : রাষ্ট্রপতি
দরজায় দাঁড়িয়েছিলাম, হঠাৎ দেখি আমাদের ট্রেন উড়ছে
ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি :
১২ নভেম্বর, ২০১৯ ১৭:১৭:৪৭
প্রিন্টঅ-অ+


গভীর রাত। হঠাৎ বিকট শব্দ পেলাম। চোখ খুলে দেখি আমাদের ট্রেনটি মাটি থেকে অনেক উপরে। দেখে মনে হচ্ছিল ট্রেনটি উড়ছে। এ অবস্থায় হঠাৎ মামাকে নিয়ে দরজা দিয়ে লাফিয়ে নিচে পড়ে যাই।

এভাবেই ট্রেন দুর্ঘটনার বর্ণনা দেন হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার মদনমোরাদ এলাকার মো. শামীম হোসেন। তিনি দুর্ঘটনাকবলিত উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনের যাত্রী ছিলেন। শামীমের সঙ্গে ছিলেন তার ভাই ও মামা। এ দুর্ঘটনায় ভাইকে হারিয়েছেন শামীম।

শামীম বলেন, আমি ও আমার বড় ভাই আল-আমিন এবং মামা মনু মিয়া শায়েস্তাগঞ্জ স্টেশন থেকে উদয়ন এক্সপ্রেসে উঠেছিলাম। আমরা তিনজনই চট্টগ্রামে রাজমিস্ত্রির কাজ করি। আসন না পাওয়ায় আমরা দরজায় দাঁড়িয়েছিলাম। ঢাকাগামী তূর্ণা নিশীথাকে সাইড দেয়ার জন্য আমাদের উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনটি মন্দবাগ স্টেশনে ঢোকার আগে দাঁড়িয়ে যায়। ১০ মিনিট দাঁড়ানোর পরও তূর্ণা নিশীথা যাচ্ছিল না। এরপর ধীরে ধীরে সামনের দিকে এগোতে থাকে উদয়ন এক্সপ্রেস। হঠাৎ করে তূর্ণা নিশীথা এসেই উদয়ন এক্সপ্রেসকে সজোরে ধাক্কা দেয়। ধাক্কা দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে উদয়নের তিনটি বগি দূরে গিয়ে ছিটকে পড়ে। এ অবস্থায় উদয়ন ট্রেনটি তূর্ণা নিশীথার ওপর উঠে যায়। এ অবস্থায় দেখে মনে হচ্ছিল আমাদের উদয়ন ট্রেনটি উড়ছে।

তিনি আরও বলেন, তূর্ণা নিশীথা ধাক্কা দেয়ার পর বিকট শব্দ হলে আমি মামাকে নিয়ে লাফিয়ে নিচে পড়ে যাই। এরপর ভাইকে খুঁজতে থাকি। কিন্তু খুঁজে পাইনি তাকে। সকালে ট্রেনের চাকার নিচ থেকে ভাইয়ের লাশ বের করা হয়। মাকে ভাইয়ের মৃত্যুর খবর জানাতে পারিনি আমি। ভাইয়ের মৃত্যুর খবর শুনলে মা মারা যাবেন।

তূর্ণা নিশীথা ট্রেনের যাত্রী নিহার বড়ুয়া বলেন, চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় যাচ্ছিলাম। আমাদের ট্রেনটা ধীরগতিতেই যাচ্ছিল। আমরা মনে করেছিলাম ট্রেন লাইনচ্যুত হয়েছে। পরে দেখলাম উদয়নকে ধাক্কা দিয়ে দুমড়ে-মুচড়ে দিয়েছে। আমাদের ট্রেনের চালকের কারণে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে।

মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) রাত পৌনে ৩টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার মন্দবাগ রেলওয়ে স্টেশনে চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা আন্তঃনগর ঢাকাগামী তূর্ণা নিশীথা ও সিলেট থেকে ছেড়ে আসা চট্টগ্রামগামী আন্তঃনগর উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনের সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ১৬ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে। আহত হয়েছেন শতাধিক যাত্রী।

সকাল সাড়ে ১০টার দিকে দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে রেলপথমন্ত্রী নূরুল ইসলাম বলেছেন, তূর্ণা নিশীথা ট্রেনের মাস্টার সিগন্যাল অমান্য করায় এ ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনা ঘটেছে।

এদিকে মন্দবাগ রেলওয়ে স্টেশনের মাস্টার জাকির হোসেন চৌধুরীও দুর্ঘটনার কারণ হিসেবে তূর্ণা নিশীথার আউটার ও হোম সিগন্যাল অমান্য করার কথা জানিয়েছেন। এ দুর্ঘটনায় নিজের কোনো দোষ নেই বলে দাবি করেন জাকির।



আমার বার্তা/১২ নভেম্বর ২০১৯/রহিমা


আরো পড়ুন